Corona করোনা

Corona…Corona-No, No, don’t come near
করোনা, করোনা-না না কাছে এসো না
 
Don’t touch me or spread your fear.
ধরোনা এবং ছুঁয়ো না!
 
Even if someone dies, don’t bury him,
মৃত্যু হলে কবরটি পর্যন্ত দিয়ো না
 
Doesn’t matter whether he is your father or son,
যদি হোক পিতার লাশ, যদিবা হোক সন্তানের,
 
Don’t touch the dead body, don’t get infected.
যে যায় মরে যাক, আমি মরবো না।
আমি ছুঁবো না কারো লাশ না না না
 
Mankind has lost its humanity,
মানবতা বর্জিত আজ
 
We have lost our conscious,
বিবেক বর্জিত সমাজ।
 
Nobody wants to die.
মরতে আজ কেউই চায় না না
 
No matter the preaching, no matter the religious proclamations,
হোক যত ধর্মের বুলি
 
Everyone is showing their true faces.
আর দেখি যত মুখোশের খুলি
পড়েছে দেখ সমাজ।
 
It’s a battle for one’s survival, no matter the cost,
কারো আজ নেই লাজ নেই লাজ
 
Mother, Father, Family, Friends- everyone wants to survive,
At whatever may be the cost.
বাঁচার লড়াইয়ে নেমেছে সব
মানছে না মা, বাবা কিংবা আপনজন আজ!
 
Corona…Corona-No, No, don’t come near
করোনা, করোনা-না না কাছে এসোনা
 
Don’t touch me or spread your fear.
ধরোনা এবং ছুঁয়ো না!
মরতে চাই না নির্ঘাত;
-

Mohiuddin Sarker
Since Mohiuddin’s first poem “Julonto Dinatipat” (Daysin Pendent) published in a college magazine, his poetries have appeared in a number of newspapers and web magazines in Bangladesh and Singapore. He had come to Singapore in 2012 and became a member of Banglar Kantha Literature Society in 2014. His poem “He Shromik (O Worker)”, has been featured in “From Walden to Woodlands” and the first segment of that poem was selected in the inaugural Migrant Worker Poetry Competition Singapore.

মহিউদ্দিন সরকার
কলেজ ম্যাগাজিনে তার প্রথম কবিতা“ঝুলন্ত দিনাতিপাত” প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশ ও সিঙ্গাপুরের বেশ কয়েকটি পত্রিকাএবং ওয়েব-ম্যাগাজিনে তার কবিতা প্রকাশিত হয়েছে।
২০১২ সালে নির্মাণ ক্ষেত্রেকাজ নিয়ে সিঙ্গাপুরে আসেন। ২০১৪ সালে সিঙ্গাপুরে বাংলার কণ্ঠ সাহিত্য পরিষদের সদস্যহয়ে কবিতার প্রতি তার ভালবাসাকে আরও শানিত করে তোলেন।
সিঙ্গাপুরের ইথোস বুকস কর্তৃক প্রকাশিত“ফ্রম ওয়াল্ডেন টু ওডল্যান্ডস” বইয়ে সিঙ্গাপুরের স্থানীয় কবিদের সাথে তার “হে শ্রমিক”কবিতাটি স্থান পায়। উল্লেখযোগ্য যে, এর আগে বাংলার কণ্ঠ অয়োজিত শ্রমজীবী অভিবাসীদেরপ্রথম কবিতা প্রতিযোগিতায় তার “হে শ্রমিক” কবিতাটি নির্বাচিত হয়।

Mohiuddin Sarkar

In partnership with Banglar Kantha, step into the world of the migrant workers through a series of poems that illustrate their experiences in life through their eyes.